এক বছর শাটডাউনের হুমকি ট্রাম্পের

21

দিনদর্পণ: থোড়াই কেয়ার করেন ডন৷ তিনি আছেন তাঁর আপন খেয়ালেই৷ খোশমেজাজে যেমনটি তাকেন তিনি৷ তা সে গোল্লায় যাক দেশ৷ তাতে তাঁর গোঁয়াড়তুমি এখনই কমছে না৷ অনেকটা শিশুদের মতোই একই আবদার করছেন তিনি৷ টাকা চাই তো চাই, ব্যাস৷ আর কিছু শুনতে চান না৷ আর এরজন্য তিনি প্রয়োজনে এক বছর সরকার অচল রাখারও হুমকি দিলেন৷ মেক্সিকো সীমান্তে দেওয়াল নির্মাণে প্রয়োজনে কংগ্রেসকে পাশ কাটিয়ে জরুরি অবস্থা জারির হুমকি দিয়েছেন ট্রাম্প৷

ডিসেম্বরের তৃতীয় সপ্তাহ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে চলমান আংশিক অচলাবস্থা বছরব্যাপী থাকলে সেজন্য প্রস্তুত আছেন বলেও জানিয়েছেন তিনি৷ ডেমোক্র্যাটদের সঙ্গে বৈঠকের পর শুক্রবার সাংবাদিকদের তিনি দেওয়াল নির্মাণের অর্থ ছাড়া বাজেট বিলে স্বাক্ষর না করারও ইঙ্গিত দিয়েছেন৷ অর্থাৎ তাঁর টাকা না দিলে আটকে যাবে গোটা একটা দেশের টাকা৷ অর্থাৎ পুরো তালা বন্ধ৷ নির্বাচনী প্রাচরে অবৈধ উদ্বাস্তু ঠেকাতে মেক্সিকো সীমান্তে যে কোনও মূল্যে দেওয়াল নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন ট্রাম্প৷ ওভাল অফিসে বসার পর থেকে সেই লক্ষ্য পূরণে একের পর এক পদক্ষেপও নিয়েছেন তিনি৷ অন্যদিকে ডেমোক্র্যাটরা শুরু থেকেই কেন্দ্রীয় সরকারের তহবিলে দেওয়াল নির্মাণে আপত্তির কথা জানিয়ে যাচ্ছিলেন৷ গত বছরের একেবারে শেষদিকে বাজেট নিয়ে কংগ্রেস ও প্রেসিডেন্টের মতবিরোধ প্রকট হলে কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন অচলাবস্থার আশঙ্কা দেখা দেয়৷ রিপাবলিকান সংখ্যাগরিষ্ঠ হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভ পরে দেওয়াল নির্মাণের খরচ-সহ একটি বাজেট বিল পাস করলেও সিনেটে পর্যাপ্ত ৬০ ভোট না পাওয়ায় তা আটকে যায়৷ ফলে ২২ ডিসেম্বর থেকে শুরু হয় ট্রাম্পের মেয়াদে কেন্দ্রীয় সরকারের তৃতীয় দফা অচলাবস্থা৷ এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও সংস্থার প্রায় ৮ লক্ষ কর্মীকে দুই সপ্তাহ ধরে বেতন ছাড়াই থাকতে হচ্ছে৷ বৃহস্পতিবার প্রতিনিধি পরিষদের নতুন সদস্যরা দায়িত্ন নিলে ডেমোক্র্যাট সংখ্যাগরিষ্ঠ হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভ ট্রাম্পের সীমান্ত নিরাপত্তা তহবিলে ১৩০ কোটি ডলার দেওয়ার প্রস্তাবসহ নতুন একটি বিল অনুমোদন করে৷ অবশ্য তাতে মন গলেনি হোয়াইট হাউসের৷ ৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সরকারি সব সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের ব্যয় পরিচালনায় একটি বিল প্রেসিডেন্টের কাছে পাঠানোর আগে তাতে উচ্চকক্ষের অনুমোদন লাগবে৷