মঙ্গলে পা রাখল নাসার ইনসাইট

17

দিনদর্পণ : অজানাকে জানার প্রবল আগ্রহ নিয়ে মঙ্গলে পৌঁছল নাসার উচ্চাকাঙ্খী ইনসাইট রোবট৷ লাল গ্রহ সম্পর্কে আরও বিষদে গবেষণা চালানোর জন্য পাঠানো হয়েছে বোরবটিকে৷ মঙ্গলে প্রাণের অস্তিত্ব বা মানুষের বসবাসযোগ্য পরিস্থিতি বিষয়ে আরও নিশ্চয়তা প্রয়োজন৷ আর সেই নিশ্চয়তা খুঁজে আনবে নাসার নতুন এই প্রোজেক্ট৷

বায়ুমণ্ডল থেকে লাল গ্রহের পৃষ্ঠে অবতরণে এর ৭ মিনিট সময় লেগেছে৷ লাল মাটির গ্রহে পা রেখেই ইনসাইট মিশনের এই রোবটটি ছবি ও তথ্য পাঠানো শুরু করেছে৷ মাটির কম্পনের তথ্য ও তাপমাত্রা থেকে মঙ্গলের অভ্যন্তরীণ কাঠামো বিষয়ে ধারণা নিতেই এই অভিযান চালাচ্ছে নাসা৷ মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থাটি জানায়, সোমবার রাত ৭টা ৫৩ মিনিটে ইনসাইটের এই রোবটটি মঙ্গলে নামে৷ যানের অবতরণের পরপরই মিশনটির নিয়ন্ত্রণ কক্ষ ক্যালিফোর্নিয়ার জেট প্রোপালশান ল্যাবরেটরির বিজ্ঞানীরা উল্লাসে ফেটে পড়েন৷ নাসার প্রধান প্রশাসক জেমস ব্রিডেনস্টাইন ইনসাইটের সফল ল্যান্ডিংয়ের এদিনটিকে অভূতপূর্ব হিসেবে বর্ণনা করেছেন৷

ফোনে বিজ্ঞানীদের শুভেচ্ছা জানিয়ছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও৷ রোবটটি এখন মঙ্গলের বিস্তৃত, সমতল একটি অঞ্চলে অবস্থান করছে,নিরক্ষরেখার কাছের ওই এলাকাটিকে এলিসিয়াম প্ল্যানেসিয়া নামে ডাকা হচ্ছে৷ মঙ্গলের বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের সময়ও এর গতি ছিল বুলেটের চেয়েও বেশি৷ চ্যালেঞ্জটা ছিল এরপরই৷ গতি কমিয়ে ঠিক মঙ্গলপৃষ্ঠে নিরাপদে অবতরণের৷ একটি তাপনিরোধক যন্ত্র, প্যারাসুট আর রকেটের সমন্বয়ে মিনিট সাতেকের মধ্যেই সেই চ্যালেঞ্জে উতরে যায় ইনসাইট৷